Samsung Galaxy S10 Plus রিভিউ

1
815
samsung galaxy s10plus review in bangla

স্যামসাং গ্যালাক্সি সিরিজের ফোন গুলো গত কয়েক বছর ধরে যে আকৃতি ফলো করে আসছিল, নতুন স্যামসাং গ্যালাক্সি S10 ও S10 Plus সে আকৃতির অভিন্নতাকে একেবারে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে দিয়েছে। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস টেন এর ডিসপ্লে কি 6.4 ইঞ্চি। যার স্ক্রিনের মধ্যেই এর ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। অন্যদিকে এর ত্রিপল লেন্স রেয়ার ক্যামেরা দিয়ে আল্ট্রা ওয়াইড ছবি তোলা যাবে। এমন কি আশ্চর্য বিষয় হলো এই ফোনটিতে কোন দৃশ্যমান ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর থাকছে না। আর ওয়ারলেস পাওয়ার শেয়ার অপশন আপনার অহংকার হয়ে দাঁড়াবে আপনার বন্ধুদের কাছে , যাদের ফোনের ব্যাটারি খুব দ্রুত ফুরিয়ে যায় । পাশাপাশি ফোনটিতে এত এত স্মার্ট ফিচার রয়েছে যার জন্য আপনাকে অনেকগুলো টাকা ($৮৯৯ও $১১৪৯) খরচ করতে হবে।

প্রথমেই ফোনটির কিছু ইতিবাচক এবং নেতিবাচক পয়েন্ট তুলে ধরছিঃ

ইতিবাচকঃ
দুর্দান্ত screen-to-body রেশিও
ইন স্ক্রীন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেনসর
বেতার বা ওয়ারলেস পাওয়ার শেয়ার

নেতিবাচকঃ
বৃহদায়তন মূল্যবৃদ্ধি
বিগ ব্যাক বাটন অস্তিত্ব

যারা high-end ফোন ব্যবহারকারীদের কাছে কোন নতুন ফোন নতুন কোন ফিচার নিয়ে হাজির হলে তাদের মনে একটি প্রশ্ন জাগে অর্থাৎ দ্বিধাদ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয় যে “আসলেই কি তাই ফোনটি আপডেট করা উচিত কিনা! ”

আজকের আলোচনায় আমি কিছু ফিচার নিয়ে আলোচনা করব যার মাধ্যমে আপনার মনে হতে পারে যে এই ফোনটিতে প্রকৃতপক্ষেই আপগ্রেড হওয়া উচিত।

এটি একটি 6.4 বা 6.1 ইঞ্চ ইনফিনিটি ডিসপ্লে যার উপর থেকে নিচ পর্যন্ত দেখলে মনে হবে পুরোটাই ডিসপ্লে। ডিভাইসটির এডজ টু এডজ ডিজাইন আপনাকে মুগ্ধ করবে। ডিসপ্লের দিক থেকে বড় কোনো ব্যজ্যালের ঠাঁই হয়নি।

ডিভাইসটির ইনফিনিটি ডিসপ্লেটিতে ছোট্ট পাঞ্চ হোল বা ছিদ্রের মত জায়গাটিতে এর ফ্রন্ট ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। সকল গুরুত্বপূর্ণ সেন্সর গুলো এর সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লের এই ছোট্ট ছিদ্রের মাঝে খুবই কারিগরি দক্ষতার মাধ্যমে স্থাপন করা হয়েছে।

ফোনটির সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লে নিচে আল্ট্রাসনিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও ব্যবহার করা হয়েছে। আপনাকে স্যামসাং এর ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর বসানো নিয়ে কোন খুঁত ধরতে হবে না। রেডমি ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ডিভাইসটির সামনের দিক থেকে ডিসপ্লের নিচের দিকে অদৃশ্যমান অবস্থায় ব্যবহার করা হয়েছে। স্যামসাং এর ব্যবহৃত এই পাঞ্চ হোল প্রযুক্তিটু নেয়া হয়েছে হুয়াওয়ে ভিউ 20 ডিভাইসটি থেকে। অন্যদিকে ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি টি এর আগে ওয়ানপ্লাস 6T , হুয়াওয়ে মেট 20 Pro সহ কিছু ভিভো ফোন গুলোতে তে ব্যবহার করা হয়েছে। ডিভাইসটির অ্যামেজিং screen-to-body 93.1 শতাংশ।

ফোনটিতে পাওয়ার শেয়ার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে যেটি আমরা এর আগে হুয়াওয়ে মেট 20 প্রো তে দেখতে পেয়েছি। এটি মূলত রিভার্স চার্জিং প্রজুক্তি যার মাধ্যমে অন্য ওয়ারলেস চার্জিং সাপোর্টেড ফোন চার্জ করা যাবে।
ফোনটিতে স্মার্ট ফোন প্রযুক্তির এই প্রথম প্রযুক্তি হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে ওয়াইফাই ৬ এবং এইচ ডি আর টেন প্লাস প্রযুক্তি।

২০১৯ সালে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস সিরিজ তাদের নতুন দৌড় শুরু করেছে এই তিনটি ফোন (Samsung Galaxy S10e, S10, S10 Plus) রিলিজ এর মাধ্যমে।
স্যামসাং গ্যালাক্সি এস টেন প্লাস এর মূল্য শুরু হয় ৮৯৯ ডলার থেকে। যার ইন্টারনাল স্টোরেজ 128 জিবি। যদি আপনি আরো বেশি স্টোরে যান এবং কোন এসডি কার্ড ব্যবহার করতে না চান তাহলে আপনাকে মোট 1149 ডলার খরচ করতে হবে।

কিছুটা সুলভ মূল্যে আপনি পাচ্ছেন স্যামসাং গ্যালাক্সি এস 10e। যার জন্য আপনাকে খরচ করতে হবে 749 ডলার। যার স্ক্রীন সাইজ 6.1 ইঞ্চ এবং স্টোরেজ 128 জিবি।

ফোনগুলো বাজারে আসতে আমাদের মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। নিচে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস টেন প্লাস এর স্পেসিফিকেশন দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের বাজারে এ ফোন গুলো পেতে অনেকদিন অপেক্ষা করতে হবে। বাংলাদেশের বাজারে কোথায় ফোন গুলো কেমন মূল্যে পাওয়া যাবে সে তথ্য গুলো জানতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপ ফেসবুক পেজ এবং ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন এবং যুক্ত থাকুন।

আমাদের ৩ লক্ষ্যাধিক মেম্বারে ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন
আমাদের YouTube Channel টিতে Subscribe করুন

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here